কমবয়সে বিয়ে করলে এই ৬টি সুফল পেতে পারেন

Uncategorized

মানুষের ঠিক কত বয়সে বিয়ে করা উচীত! এই নিয়ে অনেকের মনে অনেক ভিন্ন মন্তব্যই ব্যক্ত হয়।কারোর মতে বিয়ে করার আগে সম্পর্কের আসল মানে সঠিকভাবে জেনে নিয়েই তবে বিয়ের পিড়িতে বসা উচীত।আর তার সাথে আপনার রোজগারের পথটা পরিষ্কার হলে তবেই বিয়ে নিয়ে ভাবা উচীত।

তবে অনেকে মনে করছেন যে খুব বেশী অপেক্ষা না করে খুব কম বয়সেই বিয়ে করে নেওয়া মঙ্গল।এতে আপনার অনেক সমস্যার সমাধান পাওয়া যাবে।আর জীবনটাও হয়ে উঠবে সুখময়।তো চলুন জেনে নেওয়া যাক কম বয়সে বিয়ে করার কয়েকটি সুফল

১. বয়স ৩০ পার করে যদি আপনি বিয়ের কথা ভাবছেন তাহলে সেটি আপনার সবচেয়ে বড় ভুল হবে।কারণ মানুষের মধ্যে সাধারণত বয়স ৩০ পার করার পর একটা গাম্ভীর্য চলে আসে।এর ফলে আপনার সঙ্গীণি আপনার সাথে সুখ অনুভব করতে পারবেনা।সম্পর্কের মধ্যে তিক্ততা দেখা দিতে পারে।তখন ব্যাপারটা দাঁড়াবে যে মানুষকে বিয়ে করতে হয় তাই আপনিও একটা বিয়ে করে ফেলেছেন।তাই খুব বেশী ভাবনা চিন্তা না করে বয়স বাড়ার আগেই বিয়েটা সেরে ফেলুন।কারণ কম বয়সে আপনার মধ্যে বেশী আবেগ কাজ করবে।যার ফলে সম্পর্কের মধ্যে একটা মধুর আভাস পাওয়া যাবে।

আরও পরুনঃ মেয়েরা ঠিক কোন ধরণের ছেলেদের সাথে বেডরুমে যেতে পছন্দ করে?জানলে চমকে যাবেন

২. বেশী বয়সে করলে সবাই একটা সমস্যার প্রায়ই সম্মুখীন হয়ে থাকে।সেটি হলো একে অপরকে সময় দেওয়া।কাজের চাপের পাশাপাশি সন্তানের দায়িত্ব এগুলো সামলে ওঠার পর আর সঙ্গীণিকে সময় দিয়ে ওঠা হয়না।এর ফলে বৈবাহিক জীবনে নানা সমস্যা দেখা দেয়।তবে কম বয়সে বিয়ে করলে আপনি সন্তান নেওয়ার জন্য অনেকটা সময় পেয়ে যাবেন।তাই তার আগে সঙ্গীণির সাথে কিছু সুখময় মুহূর্ত কাটিয়ে নিন।

৩. একা থাকাটা জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল।তাই মানুষের জীবনে একটা সময় আসে যখন সে এমন কাউকে চায় যার সাথে সে তার সমস্ত সুখ দুঃখ ভাগ করে নিতে পারবে।তাই কম বয়সে বিয়ে করে নিলে আপনি এসবের জন্য অনেক বেশী সময় পাবেন।এর ফলে আপনার মানসিক চাপও অনেকটা কমে যাবে।

আরও পরুনঃ মেয়েদের বিয়ে করলে মিলছে মাইনে, থাকছে পেনশান ও – দরখাস্তের লাইনে মারামারি

৪. সন্তানের কাছে আদর্শ পিতা মাতা হতে চান? তাহলে কম বয়সেই বিয়ে করুন।কারণ যত দিন এগোচ্ছে মানুষের আয়ু ততই কমে আসছে।তাই যদি বেশী বয়সে বিয়ে করেন তাহলে আপনার সন্তানকে সেরকম ভাবে সময় দিয়ে উঠতে পারবেন না।এর ফলে আপনার সমস্ত কিছু পরিকল্পনা উল্টোদিকে এগোতে থাকবে।

৫. অনেকেই হুজুগে বিয়ে করে ফেলেন।কিন্তু সেই বিয়ে বেশীদিন সুখের না হওয়ায় তার ফল দাঁড়ায় ডিভোর্সে গিয়ে।তাই কম বয়সে বিয়ে করলে আপনি জীবনটাকে নতুন মোড়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য দ্বিতীয় সুযোগ পাবেন।এক্ষেত্রে বেশী বয়সে বিয়ে করলে সেটি আর হয়ে উঠবেনা।

আরও পরুনঃ বউ হিসেবে কোন রাশির মেয়েরা কেমন হয়? পরীক্ষালব্ধ প্রমান দিলো জ্যোতিষীরা

৬. কম বয়সে বিয়ে করে ফেললে আরও অনেক সুবিধা আপনি পেতে পারেন।যেমন আত্মীয় স্বজনদের উস্কানিমুলক কথাবার্তা “কবে বিয়ে করবে?”,” বিয়ের বয়স তো হয়েই এলো।”,”কাউকে দেখে রেখেছো নাকি ” এসব বিরক্তিকর প্রশ্নগুলো থেকেও মুক্তি পাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *