সামান্য হাতের কাজ করলেই বাইকের মাইলেজ হবে ১৫৩ কিমি/ঘন্টা…হাতেকলমে প্রমাণ করে দিলেন যুবক

টেকনোলজি
Image: Internet

কথায় আছে একজন সাধারণ মানুষ চাইলে সবকিছু করতে পারে।এমনই এক অস্বাভাবিক কাজ করে দেখালেন উত্তরপ্রদেশের এক যুবক।লোকটি তার বাইকের সাথে এমনকিছু করে দেখালো যে তাতে এখন ১৫৩ কিমি/ঘ. মাইলেজ দেয়।সাধারণত একটি বাইকের এভারেজ মাইলেজ ৫০ কিমি/ঘ.।সুতরাং একটি সাধারণ বাইকের চেয়ে ৩ গুণ বেশী।এমনই অসম্ভবকে সম্ভব করে দেখালেন উত্তরপ্রদেশের কৌশাম্বী জেলার গুদড়ী গ্রামের বাসিন্দা বিবেক কুমার পটেল।বছর খানেক ধরেই তিনি বাইক নিয়ে চর্চা করছিলেন।অবশেষে তিনি সফলতা পেলেন।

Image: Internet

বাইকের সামান্য কিছু বদল করেই তিনি এই সাফল্য লাভ করেন।তার দাবি যে তিনি যেকোনো বাইকেরই মাইলেজ ৩০ থেকে ৪০ কিমি বাড়িয়ে দিতে পারেন।

Image: Internet

নবভারত টাইমস জানিয়েছে বিবেকের এই অভূতপূর্ব আবিষ্কারটি একটা সামান্য টেকনিক।যার কিছু ফের বদল করে করা যেতে পারে।এই খবরটি পাওয়ার পরেই উত্তরপ্রদেশ সায়েন্স অফ টেকনোলজি আর এলাহাবাদের মতিলাল নেহেরু ন্যাশানাল অফ ইনস্টিটিউটে পরীক্ষা করা হয়।যা সম্পূর্ণ প্রমাণিত হয়েছে।

Image: Internet

এই টেকনিক সম্বন্ধে জানতে চাওয়া হলে বিবেক জানিয়েছেন যে,তিনি শুধু বাইকের কার্বোরেটর চেঞ্জ করে নিজের হাতে বানানো কার্বোরেটর লাগিয়েছেন।তারপরেই বাইকের মাইলেজ তিনগুণ বেড়ে যায়।এই ফের বদলে তার মাত্র ৫০০ টাকা খরচ হয়েছে।

Image: Internet

এই বিষয়টিকে মাথায় রেখে UPCST এটিকে খুব শ্রীঘ্রই বাজারে লঞ্চ করার উদ্যোগ নিয়েছে।তারা জানিয়েছে পেটেন্ট পেয়ে গেলেই তারা এটিকে বাজারে লঞ্চ করবে।
ভাবুন পেটেন্ট পেয়ে গেলে কি হতে পারে??

Image: Internet

১. বাইকের দাম কমবে।
২. পেট্রোল খরচ কমবে।
৩. আগের থেকে অধিক মাইলেজ পাওয়া যাবে বাইকে।

Image: Internet

কাটারায় অবস্থিত Shree Mate Vaisnab Devi University এর Technology Business Innovation Center বিবেকের এই আবিষ্কার কে startup হিসেবে রেজিস্টার করেছে। এর জন্য center থেকে ৭৫ লক্ষ টাকার স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে।
বিবেক জানিয়েছে এই প্রজেক্টের পেছনে তিনি ২ বছর ব্যয় করেছেন।আর নতুন কিছু আবিষ্কার করতে পেরে তিনি উৎসাহিত।তিনি আরও জানান যে বাইক ও জেনারেটরে গতি বাড়াতে তিনি এই ব্যবহার করতে চান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *